You are here
Home > সারাদেশ > কুড়িগ্রামে বিশ্ব ধরিত্রী দিবস উপলক্ষে বৃক্ষরোপন

কুড়িগ্রামে বিশ্ব ধরিত্রী দিবস উপলক্ষে বৃক্ষরোপন

কুড়িগ্রামে বিশ্ব ধরিত্রী দিবস উপলক্ষে বৃক্ষরোপন

জরীফ উদ্দীন: “পরিবেশ ও জলবায়ু সম্পর্কে সঠিক শিক্ষণ বা জ্ঞান অর্জন” প্রতিপাদ্য করে পালিত হবে ২২ এপ্রিল বিশ্ব ধরিত্রী দিবস। পৃথিবীকে বাসযোগ্য করতে প্রতিবছর ২২ এপ্রিল বিশ্ব জুড়ে নানা কর্মসূচির মাধ্যমে পালিত হয় এই দিবসটি। বিশ্ব ধরিত্রী দিবস উপলক্ষে আজ (শনিবার) কুড়িগ্রাম জেলা সদরে মোঘলবাসার বাঞ্চারাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বৃক্ষরোপন করে পরিবেশবাদী সংগঠন অরণ্য।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তৌফিক নজমুল রিপন, সহ শিক্ষক মিজানুর রহমান, অরণ্যের সাধারণ সম্পাদক জরীফ উদ্দীন, সহ সাধারণ সম্পাদক তীর্থংকর বিহারী রায়সহ জুয়েল রানা, এনায়েত করিম, একরামুল হক, ফয়সাল আহমেদ প্রমূখ ছাড়াও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

পৃথিবীর প্রকৃতি ও পরিবেশ সম্পর্কে সচেতনা সৃষ্টির লক্ষ্যে ১৯৭০ সাল থেকে প্রতিবছর বিশ্বব্যাপী এই দিবসটি পালিত হয়েছে আসছে। জলবায়ু সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ১৯৭০ সালে যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় দুই কোটি মানুষ রাস্তায় নেমে আসেন। এর মধ্যেই দিয়েই শুরু হয় বিশ্ব ধরিত্রী দিবস।

যুক্তরাষ্ট্রের উইসকনসিনের সিনেটর গেলর্ড নেলসনকে ধরিত্রী দিবসের প্রবক্তা বলা যায়। ১৯৭০ সালে তার নেতৃত্বেই বিশ্বের জলবায়ু সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির প্রয়াস শুরু হয়। তার অক্লান্ত চেষ্টায়ই যুক্তরাষ্ট্রে পরিবেশ রক্ষা সংস্থা গড়ে ওঠে। এছাড়া দূষণমুক্ত বায়ু, পানি ও হুমকির মুখে থাকা জীব প্রজাতি সম্পর্কে আইন করা হয়। অবশ্য পরে বিশ্বজুড়েই জলবায়ু সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি হয় এবং পরিবেশ আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে।

ধরিত্রী দিবসের ২০ বছর পূর্তিতে ১৯৯০ সালে আরেকটি বড় আন্দোলন শুরু হয়। ওই বছর বিশ্বজুড়ে প্রায় ২০ কোটি মানুষ ধরিত্রী দিবস পালন করেন। ওই বছর প্রথম আন্তর্জাতিক ভাবে পালিত হয় এবং ১৪১টি জাতি বা দেশ তাতে অংশগ্রহণ করে। পরে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন সিনেটর নেলসনকে যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ সম্মানে ভূষিত করেন।

পরিবেশবাদীদের দাবি, আবাসভূমিকে বাঁচাতে আবারো জোরদার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। বিশ্বের অন্যান্য দেশ এ ব্যাপারে যতটা সোচ্চার আমরা ঝুঁকির শীর্ষে থেকেও ততটা নই। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব থেকে দেশকে বাঁচাতে এক দিকে যেমন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে জোটবদ্ধ আন্দোলন দরকার, তেমনি দরকার নিজের দেশের প্রত্যেক নাগরিককে এ ব্যাপারে সচেতন করে তোলা। এবারের ধরিত্রী দিবসে সেটাই হোক আমাদের অঙ্গীকার।

Top