You are here
Home > জাতীয় > টিআইবিকে দুদকের কাছে সম্পদের হিসাব দিতে বললেন জয়

টিআইবিকে দুদকের কাছে সম্পদের হিসাব দিতে বললেন জয়

টিআইবিকে দুদকের কাছে নিজেদের সম্পদের হিসাব দিতে বললেন জয়

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে ও তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বুধবার পোস্ট করা একটি ফেসবুক স্ট্যাটাসে রাজনীতিবিদসহ অন্যান্যের দুর্নীতি পর্যবেক্ষণের নৈতিক অধিকার ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের রয়েছে কিনা সে ব্যাপারে গুরুতর আপত্তি জানিয়েছেন।

সম্প্রতি পদত্যাগ করা চিলির ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের প্রধানের প্রসঙ্গ টেনে তিনি প্রশ্ন রাখেন যারা নিজেদের ‘দুর্নীতির পর্যবেক্ষক’ বলে দাবি করছেন তারা নিজেরাই দুর্নীতিতে নিমজ্জিত কিনা তা কিভাবে বোঝা যাবে?

নিচে জয়ের ফেসবুক পোস্টটি হুবহু তুলে দেয়া হলো:

“বিগত ২ মাস ধরে আমি ভ্রমণের মাঝে আছি এবং সচরাচর পোস্ট করতে সক্ষম হইনি। শেষ পর্যন্ত আমি আমার পরিবারকে নিয়ে একটু অবকাশ কাটাতে ডিজনি ওয়ার্ল্ডে গিয়েছিলাম। আমার ধারণা সোফিয়ার মা সোফিয়ার চেয়ে বেশি উপভোগ করেছে!

একটা বিষয় আমি উত্থাপন করতে চাই, সেটা হলো সম্প্রতি চিলির ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের প্রধানের পদত্যাগ। বিদেশে সম্পদ লুকানোর বিষয়ে তার নাম এসেছিলো পানামা পেপার্সে। এখন আমার প্রশ্ন হচ্ছে, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল কতটা স্বচ্ছ এবং অন্যদের দুর্নীতিগ্রস্ত বলার অধিকার তাদের কীভাবে থাকে? সর্বোপরি, আমাদের দেশে সব সংসদ সদস্য এবং মন্ত্রীদের সম্পদের বিবরণ দিতে হয়। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ নিজেদেরটা দেয় না, তথাপিও তারা তাদের দুর্নীতির পর্যবেক্ষক বলে দাবী করে। আমরা কী করে জানি যে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের সদস্যরা দুর্নীতিগ্রস্ত নয়, তাদের কোন লুকানো সম্পদ নেই এবং তারা তাদের সব ট্যাক্স পরিশোধ করেছে?

তাদের যদি সাহস থাকে, তবে অন্যের দুর্নীতির বিষয়ে মন্তব্য করার আগে তাদের স্বেচ্ছায় নিজেদের সম্পদের বিবরণ প্রকাশ করা উচিৎ। আমার সন্দেহ আছে যে তাদের সেই সাহস রয়েছে কিনা, তাই মনে হয় একটি আইন থাকা প্রয়োজন। যে কেউ দুর্নীতির বিষয়ে পর্যবেক্ষক হতে চাইবে তাদের নিজেদের সম্পদের বিবরণ দুর্নীতি দমন কমিশনে দাখিল করে নিতে হবে, ঠিক যেমন এমপিদের করতে হয়।

যদি আমার সাথে একমত হোন, অনুগ্রহ করে এই পোস্টটি লাইক এবং শেয়ার করুন। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ তাদের সম্পদের বিবরণ প্রকাশ করে এটা প্রমাণ করুক যে তারা তাদের চিলি শাখার মতই দুর্নীতিগ্রস্ত নয়।”

Top