You are here
Home > প্রযুক্তি > ফেসবুক মেসেঞ্জারে বাস্কেটবল

ফেসবুক মেসেঞ্জারে বাস্কেটবল

ফেসবুক মেসেঞ্জারের প্রথম প্রকাশ ২০১১ সাল, এ যাবত এর অনেক অগ্রগতি এসেছে। ব্যবহারকারীদের মজার মজার সব সেবা দিয়ে বিনোদিত করতে ফেসবুক এ মাধ্যমটি নিয়ে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহন করছে প্রতিনিয়ত।

ব্যবহারকারীদের নিজেদের সেবায় সম্পৃক্ত রাখতে গত বছরও উন্নয়কদের জন্য মাধ্যমটি উন্মুক্ত করা হয়। উন্নয়করা এখন পর্যন্ত এই মেসেঞ্জার প্লাটফর্মের জন্য তৈরি করেছে চমৎকার সব অ্যাপস।

বিশ্লেষকদের মতে, ফেসবুক মেসেঞ্জার দূর্দান্ত এক প্লাটফর্ম প্রতিমাসের হিসাবে এর সক্রিয় ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৮০০ মিলয়ন যা অন্যান্য অ্যাপের তুলনায় বেশী।

গত রোববার তাদের নতুন উদ্যোগের কথা প্রকাশ পেয়েছে সংবাদমাধ্যমগুলোতে। জানানো হয়েছে, মেসেঞ্জার সেবায় এবার বাস্কেটবল গেম চালু করলো ফেসবুক।

তথ্য মতে, ফেসবুক মেসেঞ্জারের লেটেস্ট অ্যাপে ছোট এ গেমটি লুকায়িত অবস্থায় থাকবে। হুপ শুটিং টাইপের গেমটি খেলতে ব্যবহারকারীর প্রয়োজন হবে তার ফ্রেন্ড কিংবা গ্রুপকে একটি বাস্কেটবল ইমোজি পাঠানোর। এরপর এটার উপর আলতোভাবে ক্লিক করতে হবে।

গেমটি খেলতে বা শুট করতে ব্যবহারকারীকে তার আঙ্গুল বা থাম্বকে পর্দার উপরে মসৃণভাবে চালনা করতে হবে। আর ধারাবাহিকভাবে প্রতিটি বাস্কেটে ফেলানো বলের জন্য প্রাপ্ত স্কোর যেটা ব্যবহারকারী তাদের ফ্রেন্ড বা গ্রুপের সাথে চ্যাটের মাধ্যমে শেয়ার করতে পারবে।

খেলা শুরুর ১০ স্কোর লাভের পর ব্যবহারকারী টার্গেট নিয়ে এগোতে পারবে অর্থাৎ ২০ স্কোরের পর এর গতি বৃদ্ধি পাবে। তবে গেমটি খেলার জন্য নির্দিষ্ট সময় থাকবে। এছাড়া গেমারের খেলা অনুযায়ী ইমোজিগুলো ব্যবহৃত হবে যেমন মিস করলে সেড ইমোজি আর ঝুড়িতে বল ফেলতে পারলে খুশীর ইমোজি। এখানে ইমোজির সংখ্যাও কম নয়।

উল্লেখ্য, এটাই প্রথমবার নয়, মেসেঞ্জার সেবায় আগেও এ ধরনের গেম ছেড়েছে ফেসবুক। গতমাসেও এতে চেস নামের গেমের প্রবর্তন হয়।

তবে নতুন গেমটি নিয়ে এবার ধারণা করা হচ্ছে, চেস গেমের তুলনায় এটা আরো বাধ্যতামূলক করা হবে। সেইসাথে এও ধারণা রয়েছে এটি ব্যবহারকারীদের মূল্যবান সময় নষ্ট করবে।

Leave a Reply

Top