You are here
Home > বিনোদন > মধ্যরাতে বিজ্ঞাপন দিয়ে বাবাদের প্রতারণা!

মধ্যরাতে বিজ্ঞাপন দিয়ে বাবাদের প্রতারণা!

মধ্যরাতে বিজ্ঞাপন দিয়ে বাবাদের প্রতারণা!

প্রচারেই প্রসার। তাই বলে জেনে শুনে যদি কেউ প্রসারের আশায় প্রতারণামূলক প্রচারের আশ্রয় নেয় তাহলে কি সেটা ঠিক হবে। ভেঙ্গে যাওয়া সংসার জোড়া লাগানো, ব্যর্থ প্রেমকে সফল করা, দাম্পত্য জীবনকে সুখী করা, কর্মক্ষেত্রে সাফল্য এনে দেয়া, এমনকি দারিদ্র্যতা থেকে মুক্তি লাভের ফর্মুলা নিয়ে আগে ফুটপাতে গলা ফাটাতেন ক্যানভাসার নামের লোকজন। ওটাই তাদের পেশা ছিল আর এখনো আছে। তবে তারা মনে হয় প্রযুক্তির উন্নয়নের সাথে সাথে ফুটপাত থেকে উঠে এসে আমাদের ড্রয়িং রুমে জায়গা করে নিতে চাচ্ছে।

তারা কিন্তু এখন আর ক্যানভাসার নয় বরং এখন তারা নিজেরাই নিজেদের নাম দিয়েছে ‘বাবা’। অমুক বাবা, তমুক বাবা নাম নিয়ে এসব বাবারা নিজেদের গুণগান আর অলৌকিক ক্ষমতাকে প্রচারের জন্য বেছে নিচ্ছে ইন্টারনেট আর টেলিভিশনের সস্তা সময়কে (চাংক)। তবে ইন্টারনেটে যেহেতু আধুনিক আর শিক্ষিত লোকের আনাগোনা বেশি তাই মধ্যরাতে টেলিভিশনের বিজ্ঞাপনই তাদের একমাত্র ভরসা।

এই বাবারা টেলিভিশনে বিজ্ঞাপন দিয়ে এখন যে বিষয়টিকে আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে নিয়ে এসেছেন সেটি হল যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপসহ অন্যান্য দেশের লটারি জিতিয়ে দেয়া। তারা গ্যারান্টি দিচ্ছেন বিদেশে ড্র হওয়া ওইসব লটারি প্রবাসীদেরকে তারা জিতিয়ে দেবেন। তাদের এইসব বিজ্ঞাপন দেখে প্রতারণা শিকার হচ্ছেন প্রবাসের সহজ-সরল কর্মজীবী মানুষেরা। চোখের পলকে লটারি জিতে বড়লোক হওয়ার আশায় ওইসব বাবাদের পিছনে অকাতরে খরচ করছেন নিজেদের কষ্টার্জিত অর্থ।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এমনই একজন প্রবাসী ব্রেকিংনিউজের কাছে অভিযোগের সুরে বলেন, ভাই এইসব বাবাদের সম্পর্কে আপনাদের পত্রিকায় অবশ্যই লিখবেন। আমি নিজে ময়মনসিংহের একজন বাবাকে ধরে অনেক টাকা খুইয়েছি। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এখন সবকিছুর জন্য নিজের লোভ আর নিজেকেই দায়ী মনে হচ্ছে।

কেমন করে অন্য দেশের লটারি বাংলাদেশে থেকে জিতিয়ে দিচ্ছেন বাবারা, সে সম্পর্কে ব্রেকিংনিউজের পক্ষ থেকে বিজ্ঞাপনে দেয়া নাম্বারে ময়মনসিংহের এক বাবাকে ফোন করা হলে ফোনটি ধরেন তার এক সহকারী সেলিম। সাইজুল হক নামের ওই বাবার সহকারী সেলিম ফোন ধরেই জানতে চান, কী সমস্যা আর কোথা থেকে ফোন করা হয়েছে? ফোনে ব্রেকিংনিউজের পরিচয় দিয়ে তাদের প্রতারণা সম্পর্কে জানতে চাইলে, সেলিম বলেন- ‘আপনারা বিশ্বাস করলে করেন না করলে না করেন। অনেকেই বিশ্বাস করে’। কীভাবে এই অসাধ্য সাধন করে বাবা সে বিষয়ে প্রশ্ন করলে, এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না বলে ফোন রেখে দেন সেলিম।

ব্রেকিংনিউজের পক্ষ থেকে ফোন করা হয় একই অঞ্চলের আরেক বাবা ‘দয়াল বাবা’কে। তাকে ফোন দিলে (০১৭৮৭-৬৬৪৩০১) সেই ফোনটিও রিসিভ করে তার এক সহকারী জসিম। বিজ্ঞাপন দিয়ে কেন মানুষের সাথে এমন প্রতারণা করছেন এমন প্রশ্নে কোন সদুত্তর দিতে পারেন না জসিম। কথাবার্তার এক পর্যায়ে যখন ব্রেকিংনিউজের পক্ষ থেকে বলা হয় আপনারা কষ্ট করে মানুষকে লটারি জিতিয়ে দিচ্ছেন কেন? লটারি কিনে সেই লটারি তো আপনারা নিজেরাই জিততে পারেন। এমন প্রশ্নের মুখে সেও ফোন রেখে দেয়।

তবে বাবাদের প্রতারণার থেকেও ভয়ংকর ব্যাপার হচ্ছে এইসব বাবাদের বিজ্ঞাপন প্রচার করা। শুধু টাকার জন্য এমন বিজ্ঞাপন প্রচার কোনভাবেই উচিত নয় বলে মনে করেন দেশের সচেতন নাগরিক সমাজ।

Top