You are here
Home > জীবনযাপন > রক্তের গ্রুপ দিয়ে চিনে নিন নিজেকে!

রক্তের গ্রুপ দিয়ে চিনে নিন নিজেকে!

রক্তের গ্রুপ দিয়ে চিনে নিন নিজেকে

হাত দেখার গুন থাকলে খুব সহজেই জনপ্রিয় হওয়া যায়। কারন সবাই যে নিজের সম্পর্কে জানতে চায়। তারপরই নিজের ভূত-ভবিষ্যত সম্পর্কে জানতে মানুষ যার আশ্রয় নেয় সেটি হল রাশিফল। এটি তো এখন রীতিমত দারুন ব্যবসায় পরিনত হয়েছে। কিন্তু সেসব দিন বুঝি গেল, কারন এখন নিজের সম্পর্কে জানতে পারবনে নিজের রক্তের গ্রুপ থেকেই। বিশ্বাস না হলে একবার নিজেই মিলিয়ে দেখুন না।

গ্রুপ-এ: আপনার জীবনে কিন্তু চাপ আছে। প্রচণ্ড নিরাশাগ্রস্ত এবং প্রচণ্ড সংবেদনশীল। অল্পেই এত দুঃখ পান কেন বলুন তো? বিশেষত, আপনি যখন ভালো ভাবেই জানেন, কোনটা সাদা আর কোনটা কালো। আসলে আপনার সমস্যা হচ্ছে, আপনি সামাজিক নিয়মবিধি, সমাজে নিজের অবস্থান সম্পর্কে অতি-সচেতন। তাতেই কাল হয়েছে। অথচ দেখুন, আপনি সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে সচেতন। যে কোনও ধরনের পরিশ্রম করতে সমর্থ। তা ফিজিক্যাল হোক বা মেন্টাল। সহ্য ক্ষমতাও অসীম। কারও কাছে ‘একঘেয়ে’ লাগবে, এমন ধরনের কাজেও আপত্তি নেই আপনার। কিন্তু ওই যে হুটহাট গোমরামুখো-মার্কা মুখখানি, আপনার কাল হয়ে দাঁড়ায়! তখন আপনাকে দিয়ে কোনও কাজই করানো যায় না। আসলে সমস্যা হল, আপনার মতির স্থির নেই। আজ যা ‘হবি’, কাল তাকেই আপনি ‘ছবি’ করে দেবেন। অতীত থেকে শিক্ষা নেওয়ার পক্ষপাতী নন। অতীত দ্রুত ভুলে যাওয়ার চেষ্টা করেন। কী আর করবেন? আপনি তো এমনটাই।

গ্রুপ-বি: চরিত্রের দিক দিয়ে আপনি অনেক আকর্ষণীয়। যে কোনও ব্যাপারে চটপট সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। নিয়মটিয়মের ধার ধারেন না। কেউ আপনার উপর খবরদারি করতে এলে- ব্যস, মাথা গরম। অন্যের হুকুম তামিল করা আপনার ধাতে নেই। অথচ দেখুন, চারিত্রিক ভাবে আপনি কতটা নমনীয়। বাস্তবসম্মত বা বৈজ্ঞানিক যুক্তি দিয়ে আপনাকে কেউ যদি কিছু বোঝাতে চান, আপনি বোঝেন। যা নিয়ে লেগে থাকা উচিত বলে আপনি মনে করেন, তা নিয়ে দীর্ঘ দিন লেগে থাকেন। কিছুতেই আপনার উৎসাহ হারায় না। কিন্তু একঘেয়ে কাজে আপনার কোনও আকর্ষণ নেই। শরীরের দিক থেকেও ফিট। রোগবালাইয়ের বালাই নেই। আর আপনার চরিত্রের সবচেয়ে বড় মজাটা হল, আপনি ঝট করে অতীতকে ভুলতে পারেন। পুরনো প্রেম জেগে ওঠে। কিন্তু একবার ভুলে গেলেন তো গেলেন। এটাই আপনার সবচেয়ে প্লাস পয়েন্ট।

গ্রুপ-এবি: রোমিও-জুলিয়েট বা লায়লা-মজনুর ব্লাড গ্রুপ বোধ হয় ‘এবি’ ছিল। আপনাকে দেখলেই সেটা বোঝা যায়। আপনি তো প্রেমিক মানুষ। প্রচণ্ড রোমান্টিক, সেইসঙ্গে খুবই আবেগপ্রবণ। আবার একই সঙ্গে প্রচণ্ড বাস্তববাদী। অতীত সম্পর্কেও প্রচণ্ড আবেগপ্রবণ। আসলে আপনি অত্যন্ত বাস্তববাদী। হৃদয়ের চেয়েও আপনি অনেক বেশি মস্তিষ্কের কথা শোনেন। হৃদয়ের কথাও আপনি শোনেন, সেটাও যদি আপনার মস্তিষ্ক আপনাকে বলে দেয় তো। সৎ সমালোচনা আপনি পছন্দ করেন। কতটা পারলেন বড় কথা নয়। কিন্তু চেষ্টা করেন চাপ নিয়ে কাজ করতে। বিশ্লেষণী দক্ষতা ধারালো। তবে প্রচণ্ড চাপের মধ্যে বেলুনে ছুঁচ ফোটানোর মতো আপনি চুপসে যান। সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না। এটাই আপনার একমাত্র দুর্বলতা।

গ্রুপ-ও: আপনার ব্লাড গ্রুপ ‘ও’? তা হলে আপনি হচ্ছেন সেই গোত্রের মানুষ, যারা সত্যবাদীদের পছন্দ করেন। অন্যান্য গ্রুপের রক্তের মানুষের তুলনায় আপনি চারিত্রিক ভাবে অনেক দৃঢ়। আপনি যদি কিছু করবেন বলে ঠিক করেন, সেই লক্ষ্যে অবিচল থাকেন। আপনার আত্মপ্রত্যয় প্রবল। আপনি সৎ, আশাবাদী এবং উদ্দীপনায় ভরপুর। কোনও কাজ যদি আপনি অর্থহীন বলে ভাবেন, মুহূর্তে সে কাজ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন। আর অতীতের দুঃখজনক ঘটনা সম্পর্কেও আপনি বিন্দুমাত্র নিরাশ নন। অতীত থেকে শিক্ষা নিতেই আপনি ভালোবাসেন। কি ঠিক বললাম তো?

Top