You are here
Home > কৌতুক > এবারের বিষয়: প্রযুক্তি

এবারের বিষয়: প্রযুক্তি

প্রযুক্তি

♦ নিশ্চিত হলাম
মা ও ছেলের মধ্যে চ্যাটে কথোপকথন চলছে।
মা: হোমওয়ার্ক শেষ করেছ?
মা: ভাত খেয়ে থালাবাসন ধুয়ে রাখবে কিন্তু।
মা: দরজা-জানালাগুলো বন্ধ করেছ?
মা: জামাকাপড়গুলো ইস্ত্রি করে রাখো। কাল খুব সকালে স্কুলে যেতে হবে।
মা: শোন, তোমার বাবা আর আমি ঠিক করেছি, তোমাকে একটা ল্যাপটপ কিনে দেব।
ছেলে: সত্যি?
মা: না। শুধু নিশ্চিত হলাম, তুমি ওপাশে আছ কি না।

♦ রং নম্বর ছিল
বাবা বলছেন মেয়েকে, ‘কিরে, তুই তো ফোনে কথা বলা শুরু করলে দুই ঘণ্টার আগে ছাড়িস না! আজ মাত্র আধা ঘণ্টায়ই শেষ করলি। এটা কীভাবে সম্ভব?
মেয়ে: রং নম্বর ছিল বাবা!

♦ অন্য কানটা পুড়ল
এক ভদ্রমহিলা গেছেন ডাক্তারের কাছে—
ভদ্রমহিলা: ডাক্তার সাহেব, আমার দুটো কান পুড়ে গেছে।
ডাক্তার: হুম্, দেখতে পাচ্ছি। কিন্তু কীভাবে পুড়ল?
ভদ্রমহিলা: আমি আমার স্বামীর শার্ট ইস্ত্রি করছিলাম। হঠা ৎ ফোন এল। আমি ফোন না তুলে ভুল করে ইস্ত্রিটা তুলে কানে লাগিয়ে ফেলেছিলাম।
ডাক্তার: বুঝলাম, কিন্তু অন্য কানটা পুড়ল কীভাবে?
ভদ্রমহিলা: লোকটা যে আবারও ফোন করেছিল!

♦ যদি ইঞ্জিন বন্ধ হয়ে যায়
বিমান চালনা প্রশিক্ষণের সময় প্রশিক্ষককে প্রশ্ন করল এক শিক্ষার্থী, ‘স্যার, বিমান আকাশে ওড়ার সময় হঠাৎ যদি যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ইঞ্জিন বন্ধ হয়ে যায়, তাহলে নিচে পড়তে কত সময় লাগবে?’
প্রশিক্ষক: তোমার বাকি জীবন!

♦ যেমন কুকুর তেমন ফোন
ভোর পাঁচটার সময় বেজে উঠল করিম সাহেবের টেলিফোন। ঘুম থেকে উঠে ফোন ধরলেন তিনি।
করিম সাহেব: হ্যালো।
অপর প্রান্ত থেকে রাগত কণ্ঠস্বর: আমি আপনার প্রতিবেশী বলছি। আপনার কুকুরটা দীর্ঘক্ষণ ধরে ডাকাডাকি করছে। তার যন্ত্রণায় আমি ঘুমাতে পারছি না।
করিম সাহেব বিনয়ের সঙ্গে তাঁর প্রতিবেশীর নাম ও ফোন নম্বর জেনে নিয়ে ফোন রাখলেন।
পরদিন ভোর পাঁচটায় প্রতিবেশীকে ফোন করলেন করিম সাহেব, ‘শুভ সকাল। আপনাকে জানাতে ফোন করেছি যে, আমার কোনো কুকুর নেই।’

♦ যার ভাগে কম্পিউটার পড়বে
স্বামী-স্ত্রীর বিবাহবিচ্ছেদ প্রক্রিয়া চলছে আদালতে। তাদের শিশু বালককে প্রশ্ন করা হলো:
—তুমি কার সঙ্গে থাকতে চাও—বাবার সঙ্গে, নাকি মায়ের সঙ্গে?
—তার সঙ্গে, যার ভাগে কম্পিউটার পড়বে।

♦ ব্যাটারি লো
হাবলু আর বিল্টুর মধ্যে কথা হচ্ছে—
হাবলু: জানিস, আজ আমার মোবাইল ফোনে অদ্ভুত একটি মেসেজ এসেছে। আর সঙ্গে সঙ্গেই মোবাইলটি বন্ধ হয়ে গেছে।
বিল্টু: বলিস কী রে! মেসেজে কী লেখা ছিল?
হাবলু: ব্যাটারি লো।
বিল্টু: বলিস কী? মেসেজটা তাড়াতাড়ি আমাকে পাঠিয়ে দে। আমি ওই মেসেজ সবাইকে পাঠিয়ে সবার মোবাইল ফোন বন্ধ করে দেব।

♦ আমি কি কখনো হাঁড়ি চাই
প্রোগ্রামার স্বামী ল্যাপটপ নিয়ে কাজে মগ্ন। স্ত্রী এসে বলল, দাও না গো, একটু খেলি?
মনিটর থেকে চোখ না সরিয়ে উত্তর দিল প্রোগ্রামার, তুমি যখন রান্না করো, আমি কখনো হাঁড়ি চাই তোমার কাছে?

♦ মতবিরোধ
একজন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার, একজন কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার, একজন ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার এবং একজন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার গাড়িতে করে যাচ্ছিলেন। হঠাৎ গাড়িটা একটা গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে বন্ধ হয়ে গেল এবং আর কিছুতেই চালু হচ্ছিল না।
মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার: আমার ধারণা, গাড়ির কোনো পার্টস ভেঙে গেছে। আমাদের উচিত সেটা বদলে নেওয়া।
কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার: আমার ধারণা, গাড়ির গ্যাস ফুরিয়ে গেছে। আমাদের গ্যাস নেওয়া উচিত।
ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার: আমার ধারণা, গাড়ির কোনো পার্টস জ্বলে গেছে। আমাদের উচিত সেটা মেরামত করা।
কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার: হুম…আমার মনে হয়, আমাদের সবার উচিত গাড়ি থেকে বের হওয়া, তারপর আবার নতুন করে গাড়িতে উঠে বসা।

♦ ফাইল ফেরত
দুই ইউজারের সংলাপ:
‘গতকাল একটা ফাইল ডাউনলোড করেছি ইন্টারনেট থেকে, কিন্তু ওটার প্রয়োজন আমার নেই। এখন কী করে ফেরত দেব ওটা, বুঝতে পারছি না।’
‘তোমার মতো ইউজারদের কারণে অচিরেই ইন্টারনেটে আর কোনো ফাইল অবশিষ্ট থাকবে না।’

Top