You are here
Home > খেলা > কিউইদের বিপক্ষে বড় বাজে ভাবে হারল বাংলাদেশ

কিউইদের বিপক্ষে বড় বাজে ভাবে হারল বাংলাদেশ

কিউইদের বিপক্ষে বড় বাজে ভাবে হারল বাংলাদেশ

মাশরাফি বিন মুর্তজার কল্পনাকেও ছাড়িয়ে গেল নিউজিল্যান্ড। হ্যাগলি ওভালের ব্যাটিং স্বর্গে ২৮০-৩০০ রানকে কোনো ব্যাপার মনে করছিলেন না বাংলাদেশ অধিনায়ক। তাই বলে ৩৪১! এত বড় লক্ষ্য সামনে চলে আসার পর মাশরাফিও হয়তো দেখেননি জয়ের স্বপ্ন। তবু যেরকম ব্যাটিং করে ৭৭ রানে হারল বাংলাদেশ, সেটা কি মেনে নিতে পারছেন মাশরাফি?

হারের ফলে সিরিজে ১-০ তে লিড নিল স্বাগতিকরা। কিউইদের করা ৩৪১ রানের জবাবে ৪৪.৫ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ২৬৪ রান করে মাশরাফিরা। ইনজুরির কারণে রিটায়ার্ড হার্ট হওয়ার পর ব্যাটিংয়ে আর নামেননি মুশফিকুর রহিম।

৩৪২ রানে টার্গেটে বাংলাদেশের হয়ে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে নামেন তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েস। তবে দলীয় সপ্তম ওভারের তৃতীয় বলে টিম সাউদির বলে উইকেটরক্ষক লুক রঞ্চির কাছে ক্যাচ দিয়ে ফেরন ইমরুল। ২১ বলে দুই চার ও এক ছক্কায় ১৬ রান আসে এ ওপেনারের ব্যাট থেকে।

১২তম ওভারের দ্বিতীয় বলে বাজে ফর্মে থাকা সৌম্য সরকার বিদায় নেন। জিমি নিশামের বলে ব্যক্তিগত এক রানে কেন উইলিয়ামসনকে ক্যাচ দেন তিনি। একই ওভারে নিশামের দ্বিতীয় শিকার হন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (০)। ১৩তম ওভারে বাংলাদেশের দলীয় অর্ধশতক আসে। তবে ৩৮ রান করা তামিম ১৮তম ওভারের শেষ বলে নিশামের তৃতীয় শিকার হন। মিচেল স্ট্যান্টনারকে ক্যাচ দেওয়ার আগে ৫৯ বলে পাঁচ চারে ৩৮ রান করেন তিনি।

২৩তম ওভারে দলীয় শতক পূর্ণ হয় সফরকারী বাংলাদেশের। অবশ্য দুর্দান্ত খেলতে থাকা সাকিব আল হাসান ২৮তম ওভারে বিদায় নেন। লাকি ফার্গুসনের বলে টিম সাউদিকে ক্যাচ দেন তিনি। মাঠ ছাড়ার আগে ৫৪ বলে পাঁচ চার ও দুই ছক্কায় ৫৯ রান আসে তার ব্যাট থেকে। ব্যক্তিগত ১৬ রানে বিদায় নেন সাব্বির রহমান। ফার্গুসনের দ্বিতীয় শিকার হয়ে ট্রেন্ট বোল্টকে ক্যাচ দেন তিনি। তবে ৩৫তম ওভারে দলীয় দুই’শ রান পূর্ণ করে বাংলাদেশ। কিন্তু পায়ে চোট পেয়ে ব্যক্তিগত ৪২ রানে ৩৯তম ওভারে রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে মাঠ ছাড়েন মুশফিকুর রহিম।

৪৪তম ওভারে ফার্গুসনের তৃতীয় শিকার হয়ে ফেরেন তাসকিন আহমেদ। ব্যক্তিগত দুই রানে তিনি উইকেটরক্ষ লুক রঞ্চিকে ক্যাচ দেন। পরের ওভারে সাউদি শূন্য রানে মোস্তাফিজকে ফেরালে শেষ হয় বাংলাদেশের ইনিংস। সফরকারীদের হয়ে অবশ্য অসাধারণ খেলেন তরুণ ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। ৪৪ বলে পাঁচ চার ও তিন ছক্কায় ৫০ রানে দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন তিনি। কিউইদের হয়ে তিনটি করে উইকেট পান নিশাম ও ফার্গুসন। আর দুটি উইকেট লাভ করেন সাউদি।

এর আগে সফরকারী বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথমে ব্যাট করা স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে তোলে ৩৪১ রান।
টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন স্বাগতিক দলপতি কেন উইলিয়ামসন। ক্রাইস্টচার্চে হ্যাগলি ওভালেসোমবার (২৬ ডিসেম্বর) বক্সিং ডে (ক্রিসমাসের পরদিন) ওয়ানডে দিয়ে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ শুরু হয়। স্বাগতিকদলের হয়ে দুর্দান্ত এক শতক হাঁকান ওপেনার টম ল্যাথাম। টাইগারদের হয়ে সাকিব তিনটি উইকেট দখল করেন। এছাড়া, দুটি করে উইকেট লাভ করেন মোস্তাফিজ এবং তাসকিন। উইকেটশূন্য ছিলেন মাশরাফি, সৌম্য এবং মোসাদ্দেক।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

টস: নিউজিল্যান্ড

নিউজিল্যান্ড: ৫০ ওভারে ৩৪১/৭ (ল্যাথাম ১৩৭, মানরো ৮৭, উইলিয়ামসন ৩১; সাকিব ৩/৬৯, মোস্তাফিজ ২/৬২, তাসকিন ২/৭০, মাশরাফি ০/৬১)।

বাংলাদেশ: ৪৪.৫ ওভারে ২৬৪/১০ (তামিম ৩৮, ইমরুল ১৬, সৌম্য ১, মাহমুদউল্লাহ ০, সাকিব ৫৯, মুশফিক ৪২, সাব্বির ১৬, মোসাদ্দেক ৫০, মাশরাফি ১৪, তাসকিন ২, মোস্তাফিজ ২; নিশাম ৩/৩৬, ফার্গুসন ৩/৫৪, সাউদি ২/৬৩)।

ফল: নিউজিল্যান্ড ৭৭ রানে জয়ী

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: টম ল্যাথাম

Top