You are here
Home > খেলা > বীরের বেশে ফিরে এলেন সহজ-সরল মুস্তাফিজ

বীরের বেশে ফিরে এলেন সহজ-সরল মুস্তাফিজ

মুস্তাফিজুর রহমান

তার ছদ্মবেশী স্লোয়ার, মারাত্মক ইয়ার্কারে মুগ্ধ ক্রিকেট বিশ্ব। তরুণ বাঁহাতি এই পেসারের কাছ থেকে শিখতে আপত্তি নেই সানরাইজার্স হায়দরাবাদ সতীর্থ আশিস নেহরা, ভুবনেশ্বর কুমারদের। তারপরও মাটিতেই পা রাখছেন বিশ্ব ক্রিকেটের নতুন পেস বোলিং সেনসেশন মুস্তাফিজুর রহমান। আইপিএল শেষে প্রায় দুই মাস পর দেশে ফিরে জানিয়েছেন আরও শিখতে চান।

হায়দরাবাদের হয়ে আইপিএলের শিরোপা জিতে সোমবার রাতে দেশে ফিরেন মুস্তাফিজ। বিমানবন্দরে শুভেচ্ছা-অভিনন্দন আর ভালোবাসায় সিক্ত হয়েছেন ২০ বছর বয়সী এই তরুণ। সবাই মুগ্ধ এই তারকার সহজ-সরল আচরন আর সারল্যপূর্ণ কথাবার্তায়।

“আমি এখনও ছোট। আমি এখনও শিখতে চাই। আইপিএলে অনেক দেশের অনেকেই ছিল… চেষ্টা করবো, সামনে আরও সুযোগ এলে আরও ভালো কিছু দেখানোর।”

আইপিএল চলাকালেই বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় এসেছিল, ‘হায়দরাবাদের চোখের মণি মুস্তাফিজুর রহমান’। দেশে ফিরে মুস্তাফিজও বললেন একই কথা।

তার সঙ্গে কথা বলার জন্যে কোচিং স্টাফ, খেলোয়াড়, টিম ম্যানেজমেন্টের অনেকেই তার থেকে বাংলা ভাষা শিখতে চেয়েছেন বিভিন্ন সময়ে। মুস্তাফিজ এ নিয়ে বলেন, ‘আমি ইংলিশ খুব বেশি পারি না। ক্রিকেটের কিছু ভাষা পারি। সবাই আমার সঙ্গে কথা বলার জন্যে বাংলা শিখতে চেয়েছিল।’

আইপিএলে তার বোলিংয়ের প্রশংসা করেছেন সবাই। অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারের ট্রামকার্ড ছিলেন বাঁহাতি এ পেসার। দলের মেন্টর ভিভিএস লক্ষণ বিভিন্ন সময়ে মুস্তাফিজকে বলেছিলেন ক্রিকেটের বর্তমান সময়ের সবচেয়ে বড় তারকা। মুস্তাফিজের প্রশংসা করতে কেউই বাদ যায়নি।

মুস্তাফিজ জানালেন, দলের ভেতরে-বাইরে যার সঙ্গে কথা হয়েছে, তারাই তার বোলিংয়ের প্রশংসা করেছেন। দ্য ফিজ বলেন, ‘সবাই আমার সঙ্গে কথা বললে শুধু আমার বোলিংয়ের প্রশংসা করে।’

শেখার তাড়না সব সময়ই আছে মুস্তাফিজের। পাকিস্তানের পিএসএলে রিভার্স সুইংয়ের কৌশল শিখতে চেয়েছিলেন তিনি। চোটের জন্য সেই টুর্নামেন্টে খেলতে পারেননি তিনি। আইপিএলে খেলে শাণিয়ে নিয়েছেন অনেক অস্ত্র। এবার ইংল্যান্ডে নতুন কন্ডিশনে নতুন কিছু শেখার সুযোগ তার সামনে।

কাউন্টি দল সাসেক্সের হয়ে মুস্তাফিজ খেলতে যাবেন কি না তা অনেকটাই নির্ভর করছে বিসিবির চিকিৎসদের রিপোর্টের ওপরে।

“ফাইনাল ম্যাচের আগে পায়ে একটু ব্যথা ছিল। আমি কাল ক্রিকেট বোর্ডে যাব। ফিজিওকে দেখাব। বোর্ডে কথা বলবো তারপর জানা যাবে।”

প্রায় দুই মাস ভারতে থাকা মুস্তাফিজ প্রতিটি মুহূর্তে মা-বাবার অভাব অনুভব করেছেন। দেশে ফিরে স্বাভাবিকভাবেই তাদেরই কথাই সবার আগে মনে পড়েছে তার, “ভারতে থাকার সময় সবাইকে মিস করেছি। দেশকে অনেক মিস করেছি।”

দেশে ফিরে আবার স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতে জানালেন, ইংরেজিটা এখনও রপ্ত করতে পারেননি তিনি। দেশে ফেরার খুশির সঙ্গে ছিল অনেক দিন পর সবার সঙ্গে অনর্গল মাতৃভাষায় কথা বলতে পারার আনন্দও।

বিমানবন্দরে মুস্তাফিজকে স্বাগত জানাতে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয় ও বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন চৌধুরী। মুস্তাফিজের মামারা এসেছিলেন প্রিয় ভাগ্নেকে নিয়ে যেতে।

আইপিএলে হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে একটি ম্যাচ খেলতে পারেননি সেরা উদীয়মান ক্রিকেটারের পুরস্কার জেতা মুস্তাফিজ। বাকি ১৬ ম্যাচ খেলে উইকেট ১৭টি। যৌথভাবে টুর্নামেন্টের পঞ্চম সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি। ওভারপ্রতি রান দিয়েছেন মাত্র ৬.৯০, যা কমপক্ষে ২০ ওভার করা বোলারদের মধ্যে যেটি টুর্নামেন্টে সবচেয়ে কম।

Top