You are here
Home > প্রতিক্রিয়া > বিএনপিতে বেটী হয়ে বেটার কাজ করলেন তারা

বিএনপিতে বেটী হয়ে বেটার কাজ করলেন তারা

খালেদা জিয়ার সাথে শিরিন ও রানু

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল, বিএনপির কিছু দিন আগের বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি খবর ছিল শিরিন ও রানুর খালেদার বিরাগভাজন হওয়ার খবর। অনেকেই এই খবরে উৎসাহিত হয়েছেন, রানু-শিরিন বিরোধী শিবির খুশি হয়েছেন এবং বিশেষ করে যারা খালেদার কাছাকাছি যেতে পারতেন না বলে ঈর্ষান্বিত ছিলেন তারা স্বস্তি পেয়েছেন। নিউজ ভ্যালু ছিল বলে ব্রেকিংনিউজবিডি২৪ ও খবরটি যথাসময়ে সবার আগে প্রকাশিত করেছিল।

ঘটনার সূত্রপাত ছিল, বিএনপির কাউন্সিল পরবর্তী ঘোষিত কমিটি নিয়ে। ঘোষিত কমিটিতে অভিজ্ঞতা, দলের জন্য ত্যাগ আর রাজনৈতিক বয়সের তোয়াক্কা না করেই অনভিজ্ঞ আর জুনিয়রদেরকে প্রাধান্য দেয়া হয়। সাংগঠনিক পদে হাতে-কলমে অভিজ্ঞতা না থাকলেও অনেককেই দেয়া হয় সেই পদ। সবচেয়ে বড় বিষয় ঘোষিত কমিটিতে চরমভাবে লংঘিত হয় জেষ্ঠ্যতা।

শিরিন আর রানু এই বিষয়টি নিয়ে খালেদা জিয়ার কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন। বিষয়টি যে রীতিমত অন্যায় এবং দলের জন্য ক্ষতিকর সেটিও বোঝাতে চেয়েছিলেন। কিন্তু জানা গেছে, বিএনপির ভিতর কিছু তোষামোদকারী খাদেলাকে বুঝিয়েছেন, ওদের এত বড় সাহস ম্যাডাম যে আপনার সিদ্ধান্তের উপর কথা বলে। তোষামোদকারীদের বিষয়টি আমলে নিয়েই শিরিন আর রানুর উপর রুষ্ঠ হন খালেদা।

শিরিন আর রানুর বিষয়ে প্রথম প্রতিবেদন প্রকাশের পর বিএনপির অনেক নেতা-কর্মী ব্রেকিংনিউজবিডি২৪ এর কাছে ব্যক্তিগতভাবে তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছিলেন। এর মধ্যে একজন এই প্রতিবেদককে বলেন, ভাই আপনারা সবকিছুকে এত নেগেটিভ ভাবে দেখেন কেন? শিরিন আর রানুর বিষয়টি যে বিএনপির জন্য কতটা পিজিটিভ ছিল তা তো কেউ দেখলেন না। খালেদা জিয়া তো মানুষ। তারও তো ভূল-ভ্রান্তি হতে পারে। পারিপার্শ্বিক পরিবেশের কারনে অনেক সময়ই তার নেয়া সিদ্ধান্তে মাঠের রাজনীতির সঠিক প্রতিফলন ঘটে না। তার উপর আবার দলের মধ্যে বর্তমানে তোষামোদকারীদের এত আধিপত্য আর প্রভাব যে, খালেদা যে সিদ্ধান্ত নেন বা ওরা নিতে প্রভাবিত করে, সিদ্ধান্ত নেয়ার পর ওরা সমস্বরে বলে উঠে চমৎকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ম্যাডাম, দারুন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ম্যাডাম। কেউ কিন্তু ভুলটা ধরিয়ে দেয়া না বা ভুল হলেও সমালোচনা করে না।

বিএনপির ওই সমর্থক আরো বলেন, যে কাজটি কেউ করে নাই সেই কাজটি কিন্তু সাহস করে শিরিন আর রানু করেছেন। তারা তো বিএনপিতে বেটী হয়েও বেটার কাজ করেছেন। বর্তমানে বিএনপিকে কোন নেতা-কর্মী নিজের মনে করেন না। সবাই এই দলে চাকরীর মত করে পদ-পদবি নিয়ে দল করছেন। কোন সিদ্ধান্ত কে নিচ্ছে, কোথা থেকে নিচ্ছে কেউ বলতে পারে না। দলের মধ্যে হাজারটা শাখা-প্রশাখা তৈরি হয়েছে। গুলশান, পল্টন, লন্ডন আর মালয়েশিয়া সহ নাম না জানা অনেক শাখার ভীড়ে দলের মুল ফোকাসটা বর্তমানে কি সেটাই কেউ মনে করতে পারে না। এত কিছুর পরও সবচেয়ে ভয়ংকর বিষয় হল, দলের কেউ সমালোচনা সহ্য করতে পারে না, করতে পারে না। ভাবে এটা করলেই বিএনপি ছোট হয়ে যাবে। কিন্তু এর ফলে বিএনপি যে বড়ও হতে পারছেনা, সেটা বুঝছে না কেউ।

Top