You are here
Home > জাতীয় > ১ জুন থেকে স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়া হবে অনিবন্ধিত সিম

১ জুন থেকে স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়া হবে অনিবন্ধিত সিম

সিম পুনঃনিবন্ধনের সময় বাড়লো ৩১মে পর্যন্ত

আগামী ৩১ মে রাত ১২টার পর থেকে অনিবন্ধিত সব সিম স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

রোববার দুপুরে সচিবালয়ে মোবাইল অপারেটরদের সঙ্গে বৈঠক শেষে একথা বলেন তিনি।

প্রতিদিন একটির বেশি কলড্রপ হলে প্রতিটির বিপরীতে এক মিনিট টকটাইম মোবাইল অপারেটররা গ্রাহককে ফেরত দেবেন বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, ৩১ মের মধ্যে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন না করলে ১ জুন থেকে তা স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়া হবে।

সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ৩১ মে রাত ১২টা পর্যন্ত বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম পুনর্নিবন্ধন করা যাবে। এর পর থেকে সিমগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে যাবে। বন্ধ হয়ে যাওয়া এই সিমগুলো পরবর্তী  দুই মাস পর্যন্ত কেউ কিনতে পারবেন না। সিমের মালিকের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য।

প্রতিমন্ত্রী জানান, দুই মাস পর থেকে পরবর্তী ১৬ মাস পর্যন্ত (যাঁরা বিদেশে আছেন, তাঁদের জন্য পরবর্তী ১৮ মাস পর্যন্ত) কিনে পুনর্নিবন্ধন করে চালাতে পারবেন।

আরেক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এখন থেকে রাত ১১টার পর কোনো মোবাইল অপারেটর দারুণ অফার বা এ জাতীয় কোনো অফার দিতে পারবে না।

একটির বেশি কলড্রপ হলেই ফ্রি টকটাইম

তারানা হালিম বলেন, নেটওয়ার্ক এবং কলড্রপের সমস্যার সমাধান করা আমাদের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য। কলড্রপের বিষয়ে আইটিইউ’র (আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ ইউনিয়ন) নির্ধারিত মান আছে, সেটি পরবর্তী সংখ্যাগুলো কলড্রপ হিসেবে গ্রহণ করতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিটিআরসি একটি টিম গঠন করে অপারেটরদের সহযোগিতায় তাদের সিস্টেম চেক করে দেখবেন এবং প্রতিদিন একটির বেশি কলড্রপ হলে একটির বিপরীতে গ্রাহককে এক মিনিট কল ফেরত দিতে হবে। গ্রাহককে এসএসএসের মাধ্যমে নিশ্চিত করতে হবে যে কল ফেরত দেওয়া হলো। আইটিইউ’র মান অনুযায়ী একশ’টির মধ্যে তিনটি কলড্রপ হওয়া স্বাভাবিক।

তারানা হালিম বলেন, কলড্রপ সমস্যা বড় সমস্যা, এজন্য গ্রাহককে ভোগান্তিতে পড়তে হয়, এই ভোগান্তি থেকে গ্রাহককে উদ্ধার করতে চাই। প্রতিদিন একবারের বেশি কলড্রপ হলে একটির বিপরীতে এক মিনিট ফেরত দেওয়া হবে। পাঁচটি হলে চারটি কল ফেরত পাবেন গ্রাহকরা।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব ফয়জুর রহমান চৌধুরী, বিটিআরসি’র ভাইস চেয়ারম্যান আহসানি হাবিব খান এবং কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Top