You are here
Home > জাতীয় > নিজামীর সাথে শেষ সাক্ষাতে কারাগারে স্বজনেরা

নিজামীর সাথে শেষ সাক্ষাতে কারাগারে স্বজনেরা

নিজামীর সাথে শেষ সাক্ষাতে কারাগারে স্বজনেরা

একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতের আমির মতিউর রহমান নিজামীর সাথে দেখা করতে কারাগারে প্রবেশ করেছেন তার স্বজনেরা।

মঙ্গলবার রাত পৌনে ৮টার দিকে নিজামীর পরিবারের পাঁচজন সদস্য পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন সড়কে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রবেশ করেন।

যেকোন সময় হত্যা-ধর্ষণ-গণহত্যার দায়ে নিজামীকে ফাঁসির দড়িতে ঝুলতে হতে পারে, এমন প্রেক্ষাপটে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীর সঙ্গে তার পরিবারের এটাই শেষ দেখা।

মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা, গণহত্যা ও ধর্ষণ এবং বুদ্ধিজীবী হত্যার পরিকল্পনার সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ পাওয়া জামায়াতে ইসলামের আমির নিজামীর পরিবারকে সন্ধ্যার দিকে কারা কর্তৃপক্ষ ডেকে পাঠায়। নিজামীর পরিবারও জামায়াতের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। তার স্ত্রী মহিলা জামায়াতের আমির।

উচ্চ পর্যায়ের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, মানবতাবিরোধী অপরাধী নিজামীর মৃত্যুদণ্ডাদেশ আজ রাতেই কার্যকর হতে পারে। দুপুরেই কাশিমপুর কারাগার থেকে দুই জল্লাদকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে আনা হয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ফাঁসি কার্যকরের জন্য সবকিছু প্রস্তুত আছে উল্লেখ করে যেকোনো সময় ফাঁসি কার্যকর হতে পারে বলে জানান।

রিভিউ (রায় পুনর্বিবেচনা) খারিজের পূর্ণাঙ্গ রায় সোমবার রাতে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের কনডেমড সেলে থাকা নিজামীকে পড়ে শোনানো হয়। পরে চিকিৎসকেরা তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন। তার রিভিউ আবেদন খারিজ করে আপিল বিভাগ সোমবার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করার পর থেকেই ফাঁসি কার্যকরের প্রস্তুতি শুরু হয়।

আপিল বিভাগের রায়ের কপি প্রথমে আসে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে। নিজামীকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেওয়া ট্রাইব্যুনালের বিচারকরা প্রয়োজনীয় আনুষ্ঠানিকতা সেরে ওই আদেশ কেন্দ্রীয় কারাগারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠিয়ে দেন।

এখন পর্যন্ত মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ পাওয়া চারজনের দণ্ড ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে কার্যকর হয়েছে। তারা হলেন একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধ বিরোধী জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদ, দুই সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ কামারুজ্জামান ও আবদুল কাদের মোল্লা এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরী।

Top