You are here
Home > জাতীয় > শফিক রেহমানকে মুক্তি না দিলে কঠোর কর্মসূচি দিবে বিএনপি

শফিক রেহমানকে মুক্তি না দিলে কঠোর কর্মসূচি দিবে বিএনপি

শফিক রেহমানকে মুক্তি না দিলে কঠোর কর্মসূচি দিবে বিএনপি

সাংবাদিক শফিক রেহমান ও গাজীপুরের মেয়র এম এ মান্নানকে অবিলম্বে মুক্তি দেওয়া না হলে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে হুমকি দিয়েছে বিএনপি।

শফিক রেহমান ও মান্নানকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ জানাতে শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এ হুমকি দেন।

তিনি বলেন, সরকারের ব্যর্থতা ঢাকতেই সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শফিক রেহমান ও গাজীপুরের মেয়র অধ্যাপক এম এ মান্নানকে অবিলম্বে মুক্তি না দিলে কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে।

শনিবার সকাল সোয়া ৮টার দিকে শফিক রেহমানকে ডিবি পরিচয়ে তার ইস্কাটনের বাসা থেকে তুলে নেওয়া হয়। পরে ঢাকা মহানগর পুলিশের জনসংযোগ বিভাগের উপ পুলিশ কমিশনার মারুফ হোসেন সরদার জানান, পল্টন থানার একটি মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

রিজভী আহমেদ বলেন, ‘আমরা যারা গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করছি তাদের জীবন-যাপন নিরাপদ নয়। আর যারা সরকারের অপকর্ম ও অপশাসনের খবরাখবর রেখেন তারাও নিরাপদ নয়। সরকারের সর্বশেষ নির্যাতনের শিকার হলেন শফিক রেহমান। তাকে গ্রেফতার করা সরকারের চৈতন্য লোপের শামিল।’

সরকার চারদিকে ‘ব্যর্থ’— এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘শফিক রেহমানকে গ্রেফতার একটি ঘৃণ্য নাটক। সরকার কোন দিক সামল দিতে পারছে না। তার মতো একজন গুণী ব্যাক্তিকে গ্রেফতার করে সরকার নিজেদের ব্যর্থতাকে আড়াল করার চেষ্টা করছে। তাকে গ্রেফতারে বিএনপির পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও ধিক্কার জানাচ্ছি। যে মিথ্যা মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে অবিলম্বে তা প্রত্যাহার করে তার মুক্তির দাবি জানাচ্ছি।’

রিজভী বলেন, গাজীপুর থেকে ঢাকা আসার পথে রাত ৯টার দিকে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মান্নানকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

দীর্ঘ এক বছরের বেশি সময় কারাভোগের পর তাকে ফের গ্রেফতার করায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে রিজভী বলেন, ‘বর্তমান অবৈধ সরকার নির্বাচিত প্রতিনিধিদের দেখতে পারে না। তাই গাজীপুরের নির্বাচিত মেয়র অধ্যাপক এম এ মান্নানকে আবার গ্রেফতার করা হয়েছে।’

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ডা. জেড এম জাহিদ হোসেন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার, সহ দফতর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন, স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

অন্যদিকে বিশিষ্ট সাংবাদিক শফিক রেহমানকে অবিলম্বে মুক্তি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। মির্জা ফখরুল বলেন, এতে প্রমাণ হয় দেশে গণতন্ত্র নেই, বাক স্বাধীনতা নেই, নেই লেখার স্বাধীনতা।

শনিবার সকাল ১০টায় ঠাকুরগাঁও পৌর এলাকায় অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত গোয়ালপাড়া এলাকা পরিদর্শন শেষে শফিক রেহমানকে মুক্তি দিতে আহ্বান জানান তিনি।

Top